গার্মেন্টস চাকরি এর বিভিন্ন পজিশন নিয়ে সংক্ষিপ্ত আলোচনা

গার্মেন্টস চাকরি

ম্যানুফ্যাকচারিং সেক্টরে গার্মেন্টের চাকরি খুব সাধারণ। গার্মেন্টস কর্মীরা পোশাক, জুতা এবং আনুষাঙ্গিক জিনিস পত্র তৈরি করে যা সাধারণত পরিধান করা যায় ও ব্যবহার করা যায়। গার্মেন্টস শ্রমিকরা তাদের বিক্রি করা পণ্যগুলি তৈরি করতে বিভিন্ন ধরণের মেশিন ব্যবহার করে। এটি লক্ষ করা গুরুত্বপূর্ণ যে কিছু গার্মেন্ট শ্রমিক প্রয়োজন অনুযায়ী বিভিন্ন মেশিন দিয়ে কাজ করতে পারে। এই ক্ষেত্রে, তারা একজন অদক্ষ শ্রমিকের পরিবর্তে একজন বিশেষ কর্মী হিসাবে বিবেচিত হবে।

গার্মেন্টস কর্মীদের সাধারণত পুনরাবৃত্তিমূলক কাজগুলো করতে হয় যার জন্য খুব বেশি দক্ষতার প্রয়োজন হয় না।

গার্মেন্টস চাকরি এর মধ্যে রয়েছে:

  • ফাস্টেনার হ্যান্ডলিং
  • সেলাই মেশিন স্থাপন
  • অপারেটিং কম্পিউটার

পোশাক শিল্প বিশ্বের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ খাতগুলোর মধ্যে একটি, এটি বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ নারী ও পুরুষকে কাজের জন্য নিয়োগ করার উপযুক্ত কারখানা। গার্মেন্টস শিল্পের নিজস্ব অনেকগুলো চ্যালেঞ্জ রয়েছে, এই সেক্টরের মধ্যে বিভিন্ন ধরণের চাকরি পাওয়া যায় যার মধ্যে রয়েছে:

বিক্রয়কর্মী –

একজন বিক্রয়কর্মীর প্রধান দায়িত্ব গ্রাহকদের কাছে কাপড় বিক্রি করা। সেলসম্যানদের অবশ্যই তাদের পণ্য সম্পর্কে ভাল জ্ঞান থাকতে হবে এবং সেগুলিকে এমনভাবে উপস্থাপন করতে সক্ষম হতে হবে যা তাদের গ্রাহকদের কাছে আবেদন করবে ও গ্রাহক কিনতে আগ্রহী হবে। একজন বিক্রয়কর্মীকে অবশ্যই কোম্পানির জন্য নতুন ধারণা তৈরি করতে এবং পোশাকের জন্য নতুন ধারণা নিয়ে আসতে সক্ষম হতে হবে যা গ্রাহকদের কাছে কোম্পানির জনপ্রিয় ও চাহিদা বৃদ্ধি করবে।

গার্মেন্টস ডিজাইনার চাকরি –

একজন ডিজাইনারের কাজ গার্মেন্টস শিল্পের মধ্যে বিভিন্ন কোম্পানির জন্য পোশাক, জুতা এবং আনুষাঙ্গিক বিভিন্ন জিনিসের জন্য নতুন ডিজাইন তৈরি করা। একজন ডিজাইনার হওয়ার জন্য আপনাকে অবশ্যই ফ্যাশন ডিজাইন বা সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে ডিগ্রি অর্জন করতে হবে। আপনার ক্লায়েন্টদের জন্য আইটেম ডিজাইন করার সময় আপনাকে অবশ্যই সৃজনশীল হতে হবে। যার অর্থ হল দ্রুত নতুন আইডিয়া নিয়ে আসার সক্ষমতা থাকতে হবে যাতে ক্লায়েন্টদের জন্য নির্ধারিত সময়সীমার মধ্যে নতুন ডিজাইন তৈরি করা যায়।

গার্মেন্টস অপারেটর চাকরি –

একজন অপারেটরের প্রধান দায়িত্ব হল প্যান্ট, শার্ট, জ্যাকেট ইত্যাদির মতো পোশাক তৈরি করা৷ অপারেটরদের শক্তিশালী যোগাযোগ দক্ষতার প্রয়োজন কারণ তারা প্রায়শই ফোন লাইনে বা ইমেল চিঠিপত্রের (ইমেল মার্কেটিং) মাধ্যমে গ্রাহকদের সাথে সরাসরি কথা বলে। অপারেটরদেরও চমৎকার সাংগঠনিক দক্ষতা প্রয়োজন কারণ তারা গার্মেন্টস চাকরিতে সঠিকভাবে যোগাযোগ ব্যবস্থা ঠিক রাখতে এটি প্রয়োজন।

পোশাক শ্রমিক:

পোশাক শ্রমিকদের পোশাক উৎপাদন সহ গার্মেন্টস শিল্পে বিভিন্ন রকমের জিনিস তৈরি করতে কাজ করেন। তাদের সেলাইয়ের দক্ষতা ভালোভাবে উপলব্ধি করতে হয়, যা একজন দর্জি বা সীমস্ট্রেস হিসাবে কাজ করে অর্জন করতে পারবেন। একজন গার্মেন্টস কর্মী সাধারণত অন্যান্য কর্মচারীদের একটি দলের সাথে কাজ করেন এবং এই শ্রমিকদের তত্ত্বাবধানের জন্য  একজন পরিচালক দায়ী থাকবেন। গার্মেন্টস শ্রমিকরাও গার্মেন্টসের জন্য নতুন কিছু উৎপাদনের জন্য নিজেরা কিছু দায়িত্ব নিতে পারে।

দর্জি:

একজন দর্জি এমন একজন ব্যক্তি যিনি পোশাক সেলাইয়ে দক্ষ হয়ে ওঠেন। দর্জিরা সাধারণত কাপড় সেলাই বিষয়ে বিশেষ বিশেষজ্ঞ হয় এবং তারা তাদের নিজস্ব পোশাক তৈরিও করতে পারে। তারা অন্যান্য দর্জির সহকারী বা এমনকি পোশাক উৎপাদনকারী দোকানের পরিচালক হিসাবেও কাজ করতে পারে।

গার্মেন্টস স্নোবোর্ড বুট ফিটার চাকরি –

স্নোবোর্ড বুট ফিটিং হল একটি প্রক্রিয়া যা বুট ফিটার দ্বারা বুটগুলোর একটি শারীরিক পরিদর্শন দিয়ে শুরু হয়। বুট ফিটার ব্যবহার করে পা এবং গোড়ালির পরিমাপ নেওয়া হয় এবং তারপরে গার্মেন্টস স্নোবোর্ড বুট ফিটার কর্মিরা এই পরিমাপের উপর ভিত্তি করে সামঞ্জস্য নতুন নতুন বুট তৈরি করে। ফিটার সেক্টরের কর্মিরা বুট তৈরির পরে তাদের কাজ পরীক্ষা করতে এগুলো পরিমাণ করেন এবং প্রয়োজনে আরও সামঞ্জস্য করতে কাজ করতে বলেন।

প্রেসিং গার্মেন্টস চাকরি:

প্রেসিং গার্মেন্টস চাকরির দায়িত্ব খুবই মজার। কাপড়ের উপরে যেসকল প্রিন্ট করা হয় তা প্রেসিং কর্মিরা করেন। যখন ডিজাইনার হতে নতুন কোনো ডিজাইনের নকশা আসবে তখন সেটা কাপড়ের উপরে প্রেস করে নকশাটি যুক্ত করতে হবে।

বোতাম এবং স্ন্যাপ:

বোতামগুলো শার্টে পাওয়া সবচেয়ে সাধারণ ধরণের ফাস্টেনার। এগুলো বিভিন্ন আকার এবং উপকরণের মাধ্যমে তৈরি হয়। সবচেয়ে সাধারণ বোতাম হল ইংরেজি বোতাম, তবে ফ্রেঞ্চ বোতাম এবং ইতালীয় বোতামেরও জনপ্রিয়তা রয়েছে।

জিপার উৎপাদন ও সেটআপ গার্মেন্টস চাকরি:

জিপারগুলো একটি পোশাক পরিধান করার পরে বন্ধ করতে বা এটি পরার পরে আবার খুলতে ব্যবহৃত হয়। সবচেয়ে সাধারণ ধরনের জিপার হল ধাতব জিপার, যা চামড়া ছাড়া সমস্ত কাপড়ে ব্যবহৃত হয়; যাইহোক, কিছু মানুষ প্লাস্টিকের জিপার ব্যবহার করতে পছন্দ করে।

এগুলো বিভিন্ন রকমের জিনিস দিয়ে তৈরি করা হয়। প্রয়োজন অনুযায়ী এগুলোকে সাইট করে সেটআপ করা ও সঠিকভাবে কাজ করছে কিনা তা যাচাই করা হলো জিপার গার্মেন্টস চাকরি করা শ্রমিকদের দায়িত্ব।

স্টাড এবং রিভেটস:

স্টাডগুলো দুটি টুকরো করা উপাদানকে একসাথে সংযুক্ত করতে ব্যবহৃত হয়, যাতে দুটি উপদান পরা অবস্থায় একসাথে থাকে। কাপড়ের এক টুকরো অন্য কাপড়ের সাথে (যেমন বোতামহোল) সংযুক্ত করতে পোশাকের ভিতরে রিভেট ব্যবহার করা হয়।

গার্মেন্টস চাকরি একটি আয় উপার্জনের দুর্দান্ত উপায়। যতক্ষণ আপনার সঠিক দক্ষতা আছে, আপনি একটি কারখানায় কাজ করে একটি শালীন জীবনযাপন করতে পারেন।

একজন গার্মেন্টস শ্রমিকের প্রধান কাজ হল পোশাকের জন্য প্যাটার্ন কাটা এবং তারপর সেলাই করা। কর্মীদের তাক স্টক, পণ্য সংগঠিত, এবং ইনভেন্টরি ট্র্যাক রাখা জানতে হবে।

গার্মেন্টস শ্রমিকদের দ্রুত এবং দক্ষতার সাথে কাজ করতে সক্ষম হতে হবে। কারণ তাদের অপচয় করার জন্য বেশি সময় থাকে না।।

গার্মেন্টস চাকরি এর বেতন কত?

একজন গার্মেন্টস কর্মী পোশাক ডিজাইন এবং উৎপাদন করেন, সাধারণত খুচরা বাজারের জন্য এগুলো তৈরি হলেও বর্তমানে আন্তর্জাতিক বাজারে যাচ্ছে এসব উৎপাদিত পোশাক। একজন গার্মেন্টস কর্মী একটি কারখানায় গার্মেন্টস চাকরি এর নিয়োগকারীর মাধ্যমে নিযুক্ত হতে পারে, অথবা একটি কারখানায় একটি ফ্যাশন হাউসের জন্য কাজ করতে পারে।

বাংলাদেশে, পোশাক শ্রমিকদের সাধারণত ন্যূনতম মজুরি দেওয়া হয়। কিছু শিল্পে, যেমন পোশাক উৎপাদন এবং গৃহসজ্জার সামগ্রীতে প্রতি ঘন্টায় প্রায় ৫০ থেকে ১০০ টাকা বেতন দেওয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *